,

সংবাদ শিরোনাম :

পোশাক শ্রমিকদের বিক্ষোভ ৫ম দিনেও অব্যাহত

জহিরুল ইসলাম লিটন :ন্যূনতম মজুরি বাস্তবায়নসহ বিভিন্ন দাবিতে পঞ্চম দিনের মতো সড়কে অবস্থান নিয়ে বিক্ষোভ করছেন পোশাক শ্রমিকরা। রাজধানী ও আশপাশের বিভিন্ন স্থানে পোশাক শ্রমিকরা দাবি আদায়ে রাস্তায় নেমে বিক্ষোভ প্রদর্শন করছেন।রাজধানীর মিরপুরের কালশী ও শেওড়াপাড়া এলাকার রাস্তায় অবস্থান নিয়েছেন বেশ কয়েকটি গার্মেন্টসের শ্রমিকরা। এর ফলে আজ বৃহস্পতিবার সকাল থেকেই মিরপুর রোড ও মিরপুর-বিমানবন্দর সড়কে যানবাহন চলাচল বন্ধ হয়ে যায়।
পুলিশ অবরোধকৃত রাস্তা চালু করার জন্য উদ্যোগ নিয়েছে। পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনতে পুরো এলাকায় বাড়তি পুলিশ সদস্য মোতায়েন করা হয়েছে।
সরকার ঘোষিত নতুন বেতন কাঠামো অনুযায়ী পোশাক কারখানার মালিকরা বেতন দিচ্ছে না বলে অভিযোগ করছেন বিক্ষোভরত শ্রমিকরা। এছাড়া কাজের পরিবেশ নিয়েও তাদের অনেকে অভিযোগ করেন।
মূল সড়ক থেকে কর্মীদের সরিয়ে দিতে গেলে পুলিশের সঙ্গে শ্রমিকদের কয়েক দফায় ধাওয়া-পাল্টা ধাওয়ার ঘটনা ঘটে।
মিরপুর মডেল থানার পরিদর্শক (অপারেশন) দুলাল হোসেন শ্রমিকদের বিক্ষোভের বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।
সরকার ঘোষিত মজুরি কাঠামো বাস্তবায়ন কেন্দ্র করে ৫ম দিনের মতো আজ বৃহস্পতিবার সাভার ও আশুলিয়ায় শ্রমিক বিক্ষোভ অব্যাহত রয়েছে।
এদিকে আশুলিয়ায় পুলিশের সঙ্গে শ্রমিকদের ব্যাপক ধাওয়া-পাল্টাধাওয়া, টিয়ারশেল নিক্ষেপ ও সংঘর্ষের ঘটনা ঘটেছে। এ সময় পুলিশ ও শ্রমিকসহ আহত হয়েছেন অন্তত ৩০ জন।
বৃহস্পতিবার সকাল সাড়ে ৮টার দিকে টঙ্গী-আশুলিয়া-ইপিজেড সড়কের আশুলিয়ার বেরন এলাকায় এ সংঘর্ষের ঘটনা ঘটে।
পুলিশ জানায়, সকালে বেরন এলাকার শারমিন গ্রুপের এএম ডিজাইন কারখানার শ্রমিকরা কর্মবিরতি দিয়ে সড়কে বেরিয়ে আসেন। এ সময় শ্রমিকরা আগুন জ্বালিয়ে সড়ক অবরোধের চেষ্টা করলে পুলিশ এতে বাধা দেয়।
পরে শ্রমিকরা পুলিশকে লক্ষ্য করে ইটপাটকেল নিক্ষেপ করেন। পুলিশ পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনতে টিয়ারশেল নিক্ষেপ করলে শ্রমিকরা ছত্রভঙ্গ হয়ে যায়। এ সময় শ্রমিক ও পুলিশের মধ্যে ব্যাপক ধাওয়া-পাল্টাধাওয়া ও সংঘর্ষের ঘটনা ঘটে।
এতে শ্রমিক ও পুলিশসহ অন্তত ৩০ জন আহত হন। পরে বিজিবি ও পুলিশসহ আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর অতিরিক্ত সদস্যদের উপস্থিতিতে প্রায় ঘণ্টাব্যাপী সংঘর্ষের পর টঙ্গী-আশুলিয়া-ইপিজেড সড়কে যানচলাচল স্বাভাবিক হয়।
আশুলিয়া শিল্প পুলিশ-১ এর অতিরিক্ত পুলিশ সুপার শাহাদাত হোসেন জানান, শ্রমিক বিক্ষোভের ঘটনায় আশুলিয়ার কাঠগড়া ও জামগড়াসহ বেশ কিছু এলাকার প্রায় ১০টি কারখানায় সাধারণ ছুটি ঘোষণা করা হয়েছে। এ ছাড়া শিল্পাঞ্চলের বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ স্থানে অতিরিক্ত পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে।
অন্যদিকে সাভারের হেমায়েতপুর, কর্নপাড়া ও সাভার থানাস্ট্যান্ড এলাকাসহ বিভিন্ন গার্মেন্টসের সামনে অতিরিক্ত পুলিশ মোতায়েন রয়েছে। বিজিবি তাদের গাড়ি নিয়ে ঢাকা-আরিচা মহাসড়কে টহল দিচ্ছে। শ্রমিক আন্দোলনের মুখে সাভার ও আশুলিয়ার পোশাক কারখানাগুলোর সামনে বন্ধের নোটিশ টানিয়ে দিয়েছে কারখানা কর্তৃপক্ষ।

Comments

comments

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *