,

সংবাদ শিরোনাম :

কোটা আন্দোলনের নেতা আটকের অভিযোগ

 

ডেস্ক রিপোর্ট : কোটা সংস্কার নিয়ে আন্দোলন করা বাংলাদেশ সাধারণ ছাত্র অধিকার সংরক্ষণ পরিষদের নেতা এ বি এম সুহেলকে ছাত্র ইউনিয়নের সভাপতি লাকি আক্তারের বাসা থেকে আটকের অভিযোগ পাওয়া গেছে। ছাত্র ইউনিয়নে নেত্রী তার ফেসবুকে এই ঘটনাটি তুলে ধরেছেন। যদিও চেষ্টা করেও পুলিশের স্পস্ট বক্তব্য পাওয়া যায়নি। এ নিয়ে কোটা আন্দোলনের অন্তত তিন জন নেতা এখন নিরাপত্তা হেফাজতে। এদের মধ্যে রাশেদ খাঁন দুই দফায় ১৫ দিনের রিমান্ড পার করছেন। আর ফারুক হাসান আছেন কারাগারে। তবে সুহেলের বিরুদ্ধে কী অভিযোগ সেটা স্পষ্ট নয়।
গণজাগরণ মঞ্চের নেত্রী লাকী আক্তার জানিয়েছেন, বৃহস্পতিবার ভোরে শান্তিনগরে তার বাসায় অভিযান চালিয়ে সুহেলকে তুলে নিয়ে যাওয়া হয়েছে। তিনি বলেন, সে বিশ্ববিদ্যালয়ে আমার বিভাগের ছাত্র। সেই সূত্রে মাঝেমধ্যে এসে আমার বাসায় থাকত। এ বিষয়ে জানতে চাইলে পল্টন মডেল থানার ডিউটি অফিসার সেলিনা বলেন, এ নিয়ে আমাদের কাছে কোনো তথ্য এখনও আসেনি। ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশের গণমাধ্যম শাখায় যোগাযোগ করা হলে সেখান থেকেও বলা হয়েছে, আমরা এ বিষয়ে কিছু জানি না, আমাদের কাছে কোনো তথ্য নেই।
সামাজিকমাধ্যম ফেসবুকে সুহেলকে তুলে নিয়ে যাওয়ার ঘটনার বিবরণ জানিয়েছেন লাকী আক্তার। তিনি জানান, বৃহস্পতিবার ভোররাত ৪টা নাগাদ ডিবি পুলিশের আট থেকে ১০ জনের একটি দল তার বাসায় অভিযান চালায়। তারা দরজা ভেঙে ভেতরে প্রবেশ করার চেষ্টা করে। পরে বাড়ির মালিককে সঙ্গে তার বাসায় তল্লাশি চালিয়ে সুহেলকে নিয়ে গেছে। ছাত্র ইউনিয়নের সাবেক এ সভাপতি লিখেছেন- আলাদা একটি কক্ষে সুহেলকে হাতকড়া পরিয়ে জিজ্ঞাসাবাদ করা হয়েছে। পরে কোটা সংস্কার আন্দোলন নিয়ে জিজ্ঞাসাবাদ করতে তাকে তুলে নেয়া হয়েছে বলে জানিয়েছে ডিবি।
এর আগে গত ২৩ মে বিকালে পরীক্ষা শেষে ক্যাম্পাস থেকে ফেরার পথে হামলার শিকার হয়েছিলেন জবি ইংরেজি বিভাগের ১০ ব্যাচের ছাত্র সুহেল। সুহেল তখন জানিয়েছিলেন, কোটা আন্দোলনের জন্য দ্বিতীয়বার তাকে মার খেতে হয়েছে। প্রথমবার চড়-থাপ্পড় ও লাথি মারা হয়েছিল। দ্বিতীয়বারের মারধরে ঠোঁটের বাইরে ৯টা ও ভেতরেও দুটি সেলাই দিতে হয়েছে। কোটা সংস্কারের আন্দোলনে নেতৃত্বের পাশাপাশি তিনি ওই বিশ্ববিদ্যালয়ের ইংরেজি বিভাগের শিক্ষক নাসির উদ্দিন আহমেদকে চাকরিচ্যুত করার প্রতিবাদ আন্দোলনেও সক্রিয় ভূমিকায় ছিলেন।

Comments

comments

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *